ইউটিউব ও ফেসবুক থেকে আয় করার উপায়

বাংলাদেশের প্রায় ৯৯% মানুষ ফেসবুক এবং ইউটিউব ব্যবহার করে থাকেন। এই ইউটিউব এবং ফেইসবুক বাংলাদেশ সহ পুরো বিশ্বের মধ্যে বেশি অনেকটাই জনপ্রিয়। এবং এখানে সব থেকে ভিজিটর বেশি পাওয়া যায়। বিশেষ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবে facebook সবথেকে জনপ্রিয়। এ দিন দিন এই facebook এবং youtube এর প্রসারতা আরো বৃদ্ধি পাচ্ছে। তেমনি এই প্লাটফর্ম গুলো ব্যবহার করে ইনকাম করার সুযোগ সুবিধা ও তেমনি বৃদ্ধি পাচ্ছে।

পূর্বের থেকে youtube এবং faceebook থেকে ইনকাম করার প্রবণতা অনেকটাই বৃদ্ধি পেয়েছে বাংলাদেশের মানুষের মাঝে। আপনি নিজেও চাইলে তাই ইউটিউব এবং ফেসবুক থেকে আয় করতে পারবেন। তবে এজন্য আপনাকে একটি পরিশ্রম এবং অনেকটা সময় ব্যয় করতে হবে। তাহলে আপনি এ অনলাইন প্লাটফর্ম গুলো থেকে সাফল্য অর্জন করতে পারবেন। তাই এই পোস্ট থেকে ইউটিউব ও ফেসবুক থেকে আয় করার উপায় বিস্তারিতভাবে জেনে নিন।

ইউটিউব ও ফেসবুক থেকে আয় করার উপায়

এই ইউটিউবে একমাত্র ভিডিও পোস্ট করে ইনকাম করা যায় আর ফেসবুকে বিভিন্ন মাধ্যম ব্যবহার করে ইনকাম করা যায়। অর্থাৎ ফেসবুক হচ্ছে খুব সহজে ইনকাম করার বহুমুখী মাধ্যম। ফেসবুক পোস্ট, ফেসবুক ভিডিও আপলোড, ফেইসবুক পোস্ট ডিজাইন, facebook প্রোফাইল ডিজাইন, facebook পোস্ট বুষ্ট। অর্থাৎ ইত্যাদি ভাবে আপনি ফেসবুকে থেকে ইনকাম করতে পারবেন।

আর youtube থেকে শুধুমাত্র আপনাকে কনটেন্ট বা ইউটিউব ভিডিও তৈরি করে আপলোড করতে হবে। নির্দিষ্ট সময় পর,নির্দিষ্ট নিয়মকানুন বা শর্তসাপেক্ষে আপনি পরবর্তীতে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। হয়তো আপনি ভাবতেছেন ইউটিউব এবং ফেসবুক থেকে খুব সহজে টাকা আয় করা যায়। এটা বললে একটু ভুল হবে।

তবে যদি কেউ সঠিকভাবে পদক্ষেপগুলো অবলম্বন করতে পারে। তাহলে তার জন্য ফেসবুক এবং ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম করা একদম সহজ। তবে আমাদের এই পোস্ট দেখলে আপনাদের জন্য অনেকটা উপকার হতে পারে। তো কিভাবে ইউটিউব ফেসবুক থেকে আয় করা যায়।

ইউটিউব থেকে যেভাবে আয় করবেন

প্রথম কথা হচ্ছে ইউটিউব থেকে আয় করতে হলে আপনাকে গুগল এডসেন্স থাকতে হবে। তো এই গুগল এডসেন্স পেতে আপনাকে আপনার ইউটিউব চ্যানেলে বিভিন্ন ধরনের ভিডিও আপলোড করতে হবে। পরবর্তীতে একটি নির্দিষ্ট সময় পর আপনার ইউটিউব থেকে আয় হবে। তবে এই ইউটিউব থেকে অত সহজে ইনকাম করা যায় না। ইউটিউব থেকে আয় করতে হলে অবশ্যই অনেক ভিজিটরের প্রয়োজন হয়।

এক্ষেত্রে যেকোনো কনটেন্ট ব্যবহার করে সর্বনিম্ন ১ হাজার সাবস্ক্রাইবার আপনাকে আনতে হবে। সর্বশেষ ১২ মাসে চ্যানেলে দেওয়া ভিডিওর ভিউ অন্তত ৪০০০ ঘণ্টা হতে হবে। এবং সাথে আপনার সেই গুগল একাউন্টের বা চ্যানেলের গুগল এডসেন্স থাকতে হবে। এখন আপনি কি ধরনের ভিডিও তৈরি করবেন সেটি আপনার ইচ্ছে। তবে হাজার হাজার কনটেন্ট রয়েছে যা আপনি আপনার পছন্দ অনুযায়ী কন্টেন্ট তৈরি করে ইউটিউবে আপলোড করতে পারেন।

ফেসবুক থেকে আয় করার উপায়

একইভাবে যদি ফেসবুকে থেকে টাকা ইনকাম করতে চান তাহলে আপনি ভিডিও আপলোড করতে পারবেন।  অর্থাৎ আপনি ফেসবুক থেকে খুব সহজেই ব্লগিং করে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এক্ষেত্রে নিশ্চয়ই খেয়াল করেছেন ফেসবুকে ভিডিও দেখতে দেখতে মাঝখানে একটি ভিডিও চলে আসে। আর সেই ভিডিও এর মাধ্যমেই ফেসবুক ব্যবহারকারী টাকা ইনকাম করে থাকে। আর ফেসবুক থেকে টাকা ইনকাম করতে হলে অবশ্যই ফেসবুক পেজ ক্রিয়েট করতে হবে।

যদি ফেসবুক পেইজ থেকে টাকা ইনকাম করতে চান তাহলে সর্বনিম্ন আপনাকে ১০ হাজার ফলোয়ার থাকতে হবে। পেজটির ভিডিওগুলোতে বিগত ৬০ দিনে কমপক্ষে ১ মিনিটের বেশি সময় যাবৎ দেখা হয়েছে এমন ৩০,০০০ ভিউ থাকতে হবে। এছাড়াও আপনার যদি ফেসবুক ফলোয়ার বাড়িয়ে নিতে পারেন তাহলে বিভিন্ন প্রোডাক্ট এতে বিক্রি করতে পারবেন। অর্থাৎ এটি একটি অন্যতম মাধ্যম ফেসবুক থেকে টাকা ইনকাম করার।

কিভাবে ফেসবুকে প্রতিদিন 500 আয় করা যায়

এই ফেসবুক পেজটিকে যে প্রতিদিন এবং প্রতি মাসে অনেক টাকা পর্যন্ত ইনকাম করার সম্ভব হয়।  এজন্য আপনাকে সঠিক পদ্ধতি কাজে লাগাতে হবে। এর মধ্যে উল্লেখিত আপনি বিভিন্ন পেজ ক্রয় করে আপনার সেই পেজে বিভিন্ন পণ্য ক্রয় করতে পারেন।

বর্তমানে এই পদ্ধতি অনেকে ব্যবহার করছেন। অর্থাৎ ফেসবুক পেজ ব্যবহার করে প্রতিদিন আমি 500 থেকে 5000 টাকা প্রতিদিন ইনকাম করতে পারবেন। তবে অবশ্যই ভালো মানের একটু ফেসবুক পেজ এবং ফলোয়ার থাকতে হবে।

অর্থাৎ আপনি চলে মার্কেটিং করেও প্রতিদিন ৫০০ আয় করতে পারবেন।  তবে প্রথম অবস্থায় ফেসবুক থেকে এত টাকা আয় করতে না পারলেও পরবর্তীতে আস্তে আস্তে আপনি অনেক টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন।  তবে এজন্য আপনাকে অবশ্যই এবং সঠিকভাবে আপনাকে কাজ করতে হবে তাহলে আপনি ফেসবুক থেকে প্রতিদিন ৫০০ করতে পারবেন।

ফেসবুক থেকে টাকা আয় করার উপায়

যারা সব সময় ফেসবুকে অনেক বেশি সময় দিয়ে থাকে তারা চাইলে এই সময় নষ্ট না করে এই ফেসবুক থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।  বর্তমানে এই ফেসবুক থেকে টাকা ইনকাম করার সর্বোচ্চ সুযোগ রয়েছে। শুধুমাত্র আপনাকে সঠিক পদ্ধতি কাজে লাগাতে হবে। এখন কি কি উপায় অবলম্বন করলে ফেসবুক থেকে শুধুমাত্র সেই উপায়গুলো আপনাদের মাঝে তুলে ধরার চেষ্টা করতেছি। যাতে পরবর্তীতে আপনারা সেই উপায়কে কাজে লাগিয়ে ফেসবুক থেকে খুব সহজে অনেক বেশি টাকা ইনকাম করতে পারেন।

  • এফিলেট মার্কেটিং করে ফেসবুক থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।
  • ফেসবুক পেজ বিক্রি করে আয় করতে পারবেন।
  • ফেসবুক গ্রুপ তৈরি করে বিক্রি করতে পারেন।
  • তবে বেশি টাকা ইনকামের উদ্দেশ্যে ফেসবুক পেজ তৈরি করে ব্লগিং তৈরি করতে পারেন।
  • ফেসবুকে ইভেন্টের মাধ্যমে টাকা ইনকাম।
  • ফ্রিল্যান্সিং জব করেও ফেসবুকের মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে পারেন।

ফেসবুকে কত ভিউ কত টাকা

এই ফেসবুকের মাধ্যমে কত ভিউ এ কত টাকা প্রদান করে তাকেই বলতে পারবেন না। টাকা নির্ধারিত হওয়ার ফেসবুক এড ভিউয়ের মাধ্যমে। আপনি একটি ফেসবুক পেজের বিভিন্ন ধরনের ভিডিও আপলোড করবেন। এবং সেখান থেকে অন্তত কমপক্ষে ৬০ দিনের ৬ লক্ষ ভিউ থাকতে হবে। এবং সর্বশেষ আপনাকে সর্বনিম্ন ও দশ হাজার ফেসবুকের ফলোয়ার থাকতে হবে।

তারপর তাদের সকল নিয়ম অনুযায়ী ভিডিও আপলোড করলে পরবর্তীতে আপনি ফেসবুক ভিডিও থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। ফেসবুক এডসেন্স পাওয়ার জন্য আপনি উপযুক্ত হবেন। এখন কত ভিউয়ে কত টাকা আপনি পাবেন সেটা নির্ভর করছে কোন কোম্পানির আপনি এডসেন্স ব্যবহার করছেন আপনার ফেসবুক ভিডিওতে।

ধরুন আপনি যদি বেশি টাকা কোম্পানির এড ব্যবহার করেন তাহলে আপনি টাকা বেশি পাবেন। আবার একই ভিউ এ  অল্প টাকার কোম্পানিতে ব্যবহার করলে আপনি অল্প টাকা পাবেন। অনেকে প্রশ্ন করে থাকেন ফেসবুকে কত ভিউ মাধ্যমে কত টাকা পাওয়া যায়। এর নির্ধারিত কোনো উত্তর নেই,কত টাকা পাবেন সেটা সম্পূর্ণ আপনার এডসেন্সের কোম্পানির উপর নির্ভর করছে।

ফেসবুক পেজ থেকে আয় করার উপায়

আপনি বিভিন্ন ক্যাটাগরির ফেসবুক পেজ তৈরি করতে পারেন। এবং সেই ক্যাটাগরি অনুযায়ী আপনার ফেসবুক পেজে ভিডিও আপলোড করতে পারেন। তবে অবশ্যই ফেসবুক পেজের ১০ হাজার ফলোয়ার এবং এডসেন্স থাকতে হবে। এক্ষেত্রে আপনার ফেসবুক পেজ যে কোন ধরনের হতে পারে যেমন, ফুড রিভিউ, ট্রাভেল পেজ, নিউজ পোর্টাল কিংবা ট্রেন্ডি কোনো ট্রল পেজ।

ফেসবুক পেজ আপনি আবার বিক্রি করে দিতে পারেন, অর্থাৎ বারবার ফেসবুক পেজ তৈরি করে বারবার ফলোয়ার বাড়িয়ে আবার বিক্রি করে দিতে পারেন। অনেকে রয়েছেন যারা এই ফেসবুকে  মাধ্যমে ব্যবহার করে অনেক টাকা আয় করছেন।

আবার এই ফেসবুকে ভিডিও আপলোড অর্থাৎ অনেকে ব্লগিং করছেন। আপনি চাইলে এটি শুরু করতে পারেন। তবে সব থেকে সহজ কাজ ক্রয় এবং বিক্রয় করতে পারেন। এমনকি মনিটাইজেশন এবং এফিলেট মার্কেটিং করে টাকা ইনকাম করা যায় ফেসবুক পেজ থেকে।

ফেসবুকে কত ফলোয়ার হলে টাকা পাওয়া যায়

এই ফেসবুকে পার্টনারশিপ প্রোগ্রামের যোগ্য হতে সর্বনিম্ন ১০০০ ফলোয়ার লাগবে। এবং ফেসবুক থেকে টাকা ইনকাম করতে সর্বনিম্ন আপনাকে ১০ হাজার ফলোয়ার এর প্রয়োজন হবে। আর তাহলে আপনি হাতে ফেসবুক পেজের এডসেন্স পেয়ে যাবেন। এবং গত সাত দিনের সর্বনিম্ন ৬ লাখ ভিউ আপনাকে পেতে হবে। এবং কমপক্ষে সেই ভিউ এক মিনিট পর্যন্ত হতে হবে। 

10000 ভিউ এর জন্য ফেসবুক কত টাকা দেয়

আপনার ফেসবুকের একটি ভিডিওতে 10000 ভিউ এর জন্য কত টাকা দিবে তা নির্দিষ্ট করে কেউ বলতে পারবেনা। ধরুন আপনি ফেসবুক থেকে কম টাকা প্রাপ্ত কোম্পানির একটি অ্যাড্রেস আপনার ভিডিওতে  যোগ করলেন। তাহলে আপনি কোন টাকা পাবেন। আবার যদি ফেসবুক থেকে বেশি টাকা প্রাপ্ত  কোম্পানির একটি বিজ্ঞাপন আপনার ভিডিওতে যদি যুক্ত করেন।

তাহলে আপনি অনেক বেশি টাকা পাবেন। অর্থাৎ একই ভিউ কিন্তু টাকার কম বেশি হবে। এ বিষয়টি হয়তো ইতিমধ্যে বুঝতে পেরেছেন। ১০০০ ভিউয়ের নির্দিষ্ট করে ফেসবুক টাকা দিতে পারে না। ফেসবুক বিজ্ঞাপনের উপর ভিত্তি করে করে টাকা প্রদান করে থাকে।

ইউটিউব থেকে আয় করার উপায়

প্রথমত ইউটিউব থেকে আয় করতে হলে আপনাকে আপনার youtube চ্যানেলে অনেকগুলো ভিডিও আপলোড করতে হবে। এবং নূন্যতম এক হাজার সাবস্ক্রাইবার থাকতে হবে। এবং আপনার ইউটিউব চ্যানেলে গুগুল এডসেন্স বা বিজ্ঞাপনের জন্য মনিটাইজেশন পূরণ করা থাকতে হবে। তাহলে আপনি youtube থেকে টাকা পেতে শুরু করবেন। তবে কোন কোন উপায় অবলম্বন করে টাকা আয় করা যায় তা নিচে উল্লেখ করা হলো।

  • ইউটিউব থেকে টাকা আয় করতে হলে সর্বপ্রথম আপনাকে একটি জিমেইল একাউন্ট খুলতে হবে।
  • এবং কোন ক্যাটাগরি নিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খুলতে চাচ্ছেন সেটির নাম নির্বাচন করুন।
  • যে ক্যাটাগরি নিয়ে ভিডিও প্রতিদিন আপলোড করবেন, তা সাজিয়ে তুলুন। এবং প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময়ে ভিডিও আপলোড।
  • আপনার ইউটিউব চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার বাড়ানোর চেষ্টা করুন।
  • আপনার ইউটিউবের সাবস্ক্রাইবার বেশি হলে বিভিন্ন পণ্য বিক্রি করতে পারবেন।
  • এবং এসব থেকে বেশি টাকা ইনকাম সম্ভব হয় ইউটিউব মনিটাইজেশন থেকে।
  • তাই ইউটিউব মনিটাইজেশন করার চেষ্টা করুন। তাহলেই টাকা ইনকাম করতে পারবেন। 

ফেসবুক থেকে কত টাকা আয় করা যায়

আপনার যত বেশি ফলোয়ার থাকবে আপনি তত বেশি টাকা ইনকাম করতে পারবেন। মোট কথা আপনার বেশি বলার থাকলে আপনি বেশি মিনিট ভিউ পাবেন। এবং বেশি বেশি বিজ্ঞাপন আপনার ভিজিটর দেখবে। এবং বেশি টাকা আপনি পেতে শুরু করবেন। যদি কম ফলোয়ার থাকে তাহলে আপনার ভিডিও বিজ্ঞাপন কম মানুষ দেখবে। এবং কম টাকা ইনকাম হবে।

অর্থাৎ আপনি কত টাকা পাবেন সেটি সম্পূর্ণ নির্ভর করছে আপনার ফলোয়ার এবং বিজ্ঞাপনের উপর। কেউ এক মাসে এক লক্ষ টাকা ইনকাম করে, আবার কেউ এই ফেসবুক থেকে মাসে পাঁচ থেকে ১০ লক্ষ টাকা ইনকাম করে। তাই ফেসবুক থেকে কে কত টাকা ইনকাম করে তা নির্দিষ্ট করে বলা  একটু মুশকিল।

ভিডিও আপলোড করে আয় করার জন্য ইউটিউব বেশি ভালো? নাকি ফেসবুক?

ভিডিও আপলোড করে ইউটিউবে থেকে ফেসবুকে একটু বেশি ইনকাম করা সম্ভব হয়। কারণ হচ্ছে youtube এর থেকে ফেসবুকে বাংলাদেশের সব থেকে বেশি মানুষ একটিভ থাকে। অর্থাৎ facebook থেকে বেশি ভিজিটর পাওয়া সম্ভব। তাই ইউটিউব থেকে একটু বেশি টাকা ইনকাম সম্ভব ভাই ফেসবুক থেকে। যদি ভালো কোন ভিডিও আপলোড আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে করা হয়।

শেষ কথা

আশা করতেছি আজকের এই পোস্ট থেকে অনেকটা উপকৃত হয়েছেন। খুব সহজে আপনাদেরকে হবে আপনাদেরকে বুঝিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছি। আশা করতেছি ইউটিউব ও ফেসবুক থেকে আই করার উপায় গুলো আপনাদের কাছে অনেক সহজ লেগেছে।

যদি এই পোস্ট আপনার কাছে সত্যিই উপকৃত মনে হয়ে থাকে, তাহলে আপনার আশে পাশে অনেক ব্যক্তি রয়েছেন যারা অনলাইনে ইনকাম করতে চান। ঠিক তাদেরকে এই পোস্ট শেয়ার করে দিন, যাতে তারা এ পোস্ট থেকে ইনকাম করার উপায়গুলো সম্পর্কে জানতে পারেন। ধন্যবাদ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top